আফগান রেডিও স্টেশনের ব্যবস্থাপক নিহত, সাংবাদিককে অপহরণ

 আফগান রেডিও স্টেশনের ব্যবস্থাপক নিহত, সাংবাদিককে অপহরণ

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলে এক রেডিও স্টেশনের ব্যবস্থাপককে হত্যা ও দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ হেলমান্দে এক সাংবাদিককে অপহরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সন্দেহভাজন তালেবান যোদ্ধারা এসব ঘটনা ঘটিয়েছে বলে সোমবার স্থানীয় সরকারি কর্মকর্তারা দাবি করেছেন।

রয়টার্স জানিয়েছে, রোববার বন্দুকধারীরা পরিকল্পিতভাবে পাকতিয়া ঘাগ রেডিওর স্টেশন ব্যবস্থাপক তুফান ওমরকে গুলি করে হত্যা করেছে। একইদিন হেলমান্দ প্রদেশের স্থানীয় সাংবাদিক নেমাতুল্লাহ হেমাতকে প্রাদেশিক রাজধানী লস্কর গাহ থেকে অপহরণ করা হয়েছে।

ওমর আফগানিস্তানে স্বাধীন গণমাধ্যমের সমর্থক গোষ্ঠী এনএআইয়ের একজন কর্মকর্তা। তালেবান এ হামলা চালিয়েছে বলে সন্দেহ করছেন কাবুলের সরকারি কর্মকর্তারা।

অন্যদিকে হেমাতের কর্মস্থল বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ঘারঘাশত টিভির প্রধান রাজওয়ান মিখায়েল বলেছেন, ‘তালেবান হেমাতকে কোথায় নিয়ে গেছে সে বিষয়ে কোনো ধারণা পাওয়া যায়নি। আমরা সত্যি আতঙ্কের মধ্যে আছি।’ তবে এসব ঘটনায় নিজেদের সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করেছে তালেবান।

তালেবানের এক মুখপাত্র রয়টার্সকে জানিয়েছেন, কাবুলের হত্যাকাণ্ড বা হেলমান্দের সাংবাদিক অপহরণের বিষয়ে তার কাছে কোনো তথ্য নেই।

এদিকে আফগানিস্তানের সংবাদ সংস্থাগুলোর একটি জোট আফগান সাংবাদিক ও সংবাদ কর্মীদের বিশেষ অভিবাসী ভিসা দেওয়ার জন্য লিখিতভাবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও দেশটির প্রতিনিধি পরিষদের নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

গত দুই মাসের মধ্যে আফগানিস্তানের চারশ জেলার অর্ধেকই এখন তালেবানের দখলে। পাঁচটি প্রাদেশিক রাজধানী এখন তাদের নিয়ন্ত্রণে।

তালেবান দাবি করছে, আফগানিস্তানের ৮০ শতাংশ এলাকা তারা এখন নিয়ন্ত্রণ করছে। সেটি অতিরঞ্জিত হলেও আমেরিকানরাই স্বীকার করছে দেশের অর্ধেকেরও বেশি এলাকা এখন তালেবানের দখলে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *