ইংল্যান্ডের বাংলাদেশ সফর নিয়ে নতুন আশা

 ইংল্যান্ডের বাংলাদেশ সফর নিয়ে নতুন আশা

পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি খেলতে বাংলাদেশে সফররত অস্ট্রেলিয়ার একের পর এক আবদার মেটাতেই যখন ব্যতিব্যস্ত বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ঠিক তখনই কালো মেঘ হয়ে এসেছে আরও এক দুঃসংবাদ। সোমবার (২ আগস্ট) দিনের শেষ ভাগে জানা গেল, আগামী অক্টোবরে অনুষ্ঠেয় বাংলাদেশ সফর স্থগিত করেছে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি)।

তবে নতুন আশা দেখছেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী। সংবাদমাধ্যমকে তিনি বলেছেন, ‘সফরটি এখনো স্থগিত হয়ে যায়নি। দুই বোর্ডের মধ্যে এ বিষয়ে আলোচনা চলছে। আশা করা যাচ্ছে ভালো কিছুই হবে।’
টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসেবে তিনটি টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে সুপার লিগের অংশ হিসেবে সমান সংখ্যক ম্যাচ খেলার কথা ছিল বাংলাদেশ ও ইংল্যান্ডের। এর মধ্যে ওয়ানডে সিরিজটি এখন না হলেও পরে সুবিধাজনক সময়েই হবে। শঙ্কা কেবল টি-টোয়েন্টি সিরিজ নিয়ে।
নিজামউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ওয়ানডে সিরিজটির ম্যাচের সময়সূচি পরিবর্তন নিয়ে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে আমাদের আলোচনা চলছে। যেহেতু সামনে একটি বিশ্বকাপ আছে এবং সব দলেরই ঠাসা সূচি। যদিও এটার মানে এই নয় যে এই সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে সিরিজটি হচ্ছে না। আলোচনা এখনো চলমান।
বিসিবি সিইওর ভাষ্য, টানা খেলা আর জৈব-সুরক্ষা বলয়ে থেকে ইংলিশ ক্রিকেটাররা ক্লান্ত। যেমন আমাদের ক্রিকেটাররা বাবলে থেকে টানা খেলার মধ্যে রয়েছে। প্রায় বিরামহীন অবস্থায় খেলছে। সেই জানুয়ারিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হোম সিরিজের আগে শুরু হয়েছে। তারপর নিউজিল্যান্ড সফর। এরপর শ্রীলঙ্কা যাওয়া, শ্রীলঙ্কার ফিরতি বাংলাদেশে খেলতে আসা। তা শেষ করে জিম্বাবুয়ের সফরে যাওয়া। এখন আবার ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে খেলা। সব মিলে প্লেয়ারদের শারীরিক ও মানসিক অবস্থা খুবই চাপের মধ্যে রয়েছে। ইংল্যান্ডেরও একই অবস্থা। যেহেতু আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মতো বড় আসর আছে, তাই খেলোয়াড়দের বিশ্রাম দেওয়ার চিন্তা থেকেই হয়তো তাদের এই সিদ্ধান্ত।
নিজামউদ্দিন চৌধুরী আরও বলেন, ‘যদি সিরিজটি আগের সূচিতেই থাকে, তাহলে তা আর জানানোর কিছু নেই। যদি নতুন সূচিতে হয়, আমরা সময়মতো তা জানিয়ে দেব।’
চলতি বছরের টি-২০ বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল ভারতে। কিন্তু দেশটিতে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নেওয়ায় বিসিসিআই এবারের আসরটি শেষ পর্যন্ত সরিয়ে নিতে বাধ্য হয়। এরপর ঘোষণা করা হয় নতুন ভেন্যু ওমান ও আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত হবে ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত সংস্করণের ধুমধারাক্কা এই আসর।
যেহেতু আসর হওয়ার কথা ছিল ভারতে, উপমহাদেশের বাইরের দেশগুলো তাই এ অঞ্চলের কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে বেছে নেয় বাংলাদেশকে। বর্তমানে তারই অংশ হিসেবে বাংলাদেশ সফর করছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। এরপর ৫ ম্যাচের টি-২০ সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে আসার কথা আছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলেরও।
এবারের টি-২০ বিশ্বকাপ হচ্ছে আরব আমিরাতে। আর বিশ্ব আসর শুরুর ঠিক আগেই সেখানে শুরু হবে স্থগিত হওয়া আইপিএল। আরব আমিরাতের তিন ভেন্যু দুবাই, আবুধাবি ও শারজায় হবে আইপিএলের খেলা। বিশ্বকাপের খেলাও হবে এ তিন ভেন্যুতে। তাই বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটারদের কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার পাশাপাশি ম্যাচ অনুশীলনের সুযোগ করে দিতেই ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড খেলোয়াড়দের সেই সুযোগ করে দিতে চাইছে। যার কারণেই মূলত স্থগিত হচ্ছে ইংল্যান্ডের বাংলাদেশ সফর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *