ইউপি নির্বাচনের নামে খুনোখুনি চলছে: জিএম কাদের

 ইউপি নির্বাচনের নামে খুনোখুনি চলছে: জিএম কাদের

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম কাদের এমপি বলেছেন, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের নামে খুনোখুনি চলছে। নির্বাচনের নামে প্রহসন চলছে, তামাশার নির্বাচন চলছে দেশে। নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে সম্পূর্ণ ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য সংবিধান অনেক ক্ষমতা দিয়েছে নির্বাচন কমিশনকে। কিন্তু তারা সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য ক্ষমতা প্রয়োগ করছে না। নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে ব্যর্থতার দায় নির্বাচন কমিশনকেই নিতে হবে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয়ে জাতীয় মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পরিষদের আত্মপ্রকাশ অনুষ্ঠানে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান এসব কথা বলেন। জাতীয় মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পরিষদ আজ থেকে জাতীয় পার্টির সহযোগী সংগঠন হিসাবে কাজ করবে।

জিএম কাদের এমপি বলেন, ঠুনকো কারণে জাতীয় পার্টির প্রার্থীদের প্রার্থিতা বাতিল করে দিচ্ছে। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচনে জয়ী হতে মরিয়া সরকারদলীয় প্রার্থীরা। আবার সরকারদলীয় প্রার্থীরা হামলা-মামলা করছে জাতীয় পার্টি প্রার্থীদের ওপর। সরকারি দলের সমর্থকরা নির্বাচনের মাঠে দাঁড়াতে দিচ্ছে না ভিন্নমতাবলম্বীদের। তিনি বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ হচ্ছে সবচেয়ে কম ক্ষমতার একটি প্রতিষ্ঠান, যেখানে বাজেটও থাকে স্বল্প। কিন্তু নির্বাচন কমিশন পুলিশ ও প্রশাসনকে ব্যবহার করে নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে ব্যর্থ হয়েছে। নির্বাচনে মানুষ ভোট দিতে না পারাটা দুর্ভাগ্যজনক।

অনুষ্ঠানে জিএম কাদের আরও বলেন, শুধু স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নয়, সব মন্ত্রণালয়ই দুর্নীতিতে ছেঁয়ে গেছে। সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের উদ্ধৃতি উল্লেখ করে দুর্নীতি সম্পর্কে জিএম কাদের বলেন, পুকুর চুরি নয়, এখন সাগর চুরি হচ্ছে। তিনি বলেন, দুর্নীতিই এখন নীতি হয়ে দাঁড়িয়েছে। যারা দুর্নীতি করে সমাজে তারাই বুক ফুলিয়ে চলে। আর যারা দুর্নীতি করে না তারা অনেক সময় নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। এ সময় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের যৌক্তিক দাবি মেনে নিয়োগ প্রক্রিয়া চালু করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

সভায় জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু এমপি বলেন, নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ ঘোষণা দিয়েছিল ঘরে ঘরে চাকরির ব্যবস্থা করবে। কিন্তু, দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য দেশে এখন কোটি কোটি বেকার কাজের জন্য হন্যে হয়ে ঘুরছে। দেশ দুর্নীতিতে ছেঁয়ে গেছে। মন্ত্রণালয়ের ড্রাইভাররা শত কোটি টাকার মালিক হন, কেরানির স্ত্রী হাজার কোটি টাকার মালিক। এর চেয়ে লজ্জাজনক ঘটনা আর হতে পারে না। তিনি বলেন, আওযামী লীগ ও বিএনপির ওপরে মানুষ অতিষ্ঠ। দেশের মানুষ আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টিকে রাষ্ট্রক্ষমতায় দেখতে চায়।

মো. ইকরাম হোসেন বাবুর সভাপতিত্বে এবং প্রিয়াংকা সুকমলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন প্রেসিডিয়াম সদস্য রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, ভাইস চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম ওমর, যুগ্ম মহাসচিব মো. জসীম উদ্দিন ভূঁইয়া, ফখরুল আহসান শাহজাদা, কেন্দ্রীয় নেতা ডা. মোস্তাফিজুর রহমান আকাশ, জাতীয় মেডিকেল টেকনোলজিস্ট পরিষদের নেতা সাজ্জাদ, আব্দুর রহিম রোমান, আশরাফুল আলম। উপস্থিত ছিলেন-প্রেসিডিয়াম সদস্য মীর আব্দুস সবুর আসুদ, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা মনিরুল ইসলাম মিলন, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মঞ্জুর হোসেন মঞ্জু, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য মমতাজ উদ্দীন ও এমএ রাজ্জাক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *