ক্রিকেটারদের কাছে ব্যাখ্যা চাইবে বিসিবি

 ক্রিকেটারদের কাছে ব্যাখ্যা চাইবে বিসিবি

‘অলটাইম লো’—বলছেন চতুর্থ মেয়াদে সভাপতি পদে আসীন নাজমুল হাসানের বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) লোকজনই। দুঃসময় আগেও এসেছিল তবে এমন প্রলয়ংকরী ঝড় তুলে নয়। তাই ‘ড্যামেজ কন্ট্রোলে’ নেমে পড়েছেন স্বয়ং নাজমুল হাসান। তবে এবার ভিন্ন কৌশলে। মিডিয়ার সামনে ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে নয়, নীরবে ক্ষয়ক্ষতি সামাল দেওয়ার পন্থা নিয়েছে বিসিবি। সেসবের চৌম্বক অংশ—বিশ্বকাপে অংশগ্রহণকারী ক্রিকেটারদের আলাদাভাবে ডেকে শোনা হবে ব্যর্থতার কারণগুলো।

এমন পরিস্থিতিতে মিডিয়ার সামনে দাঁড়িয়ে পড়েন নাজমুল হাসান, সবিস্তার বর্ণনা করেন ব্যর্থতার কারণ। কিন্তু এবার সেই সুযোগ না দিয়ে তিনি এখন লন্ডনে। তবে যাওয়ার আগে মাশরাফি বিন মর্তুজা ও তামিম ইকবালকে নিজের বাসায় ডেকে নিয়ে কথা বলেছেন, আলোচনা করেছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীনসহ গুরুত্বপূর্ণ বোর্ড পরিচালকদের সঙ্গে। সেখানেই ধ্বংসস্তূপ থেকে উঠে দাঁড়ানোর রোডম্যাপ তৈরি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুরো প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত এক নীতিনির্ধারক।

‘সামনেই পাকিস্তান সিরিজ। তাই এই সময়ে মাথা ঠাণ্ডা রেখে আমাদের সমস্যার সমাধান খুঁজতে হবে। এটা তো বলার অপেক্ষা রাখে না যে বাংলাদেশ দল এত খারাপ ক্রিকেট খেলে না। কিন্তু তার পরও দল এমন কেন করল, সেটা আগে জানতে হবে’, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিসিবির এক ঊর্ধ্বতন জানিয়েছেন। ২০০৩ বিশ্বকাপ ব্যর্থতার পর তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল, কোচিং স্টাফ আর ক্রিকেটারদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছিল টুর্নামেন্ট কাভার করতে যাওয়া কয়েকজন সাংবাদিকেরও। এবার শুধু ক্রিকেটারদের ডাকা হবে বলে জানিয়েছেন ওই কর্মকর্তা, ‘পাকিস্তান সিরিজের ক্যাম্প শুরু হলে আলাদা আলাদা করে ক্রিকেটারদের ডাকা হবে। তাদের কাছ থেকে সমস্যাগুলো আমরা জানতে চাই।’ বলার অপেক্ষা রাখে না, জবাবদিহি চাওয়া হবে কোচিং স্টাফদের কাছে।

এর মধ্যে পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন টি-টোয়েন্টি আর দুই টেস্টের সিরিজ শুরু হয়ে যাবে। তাই আপাতত শুধু সমস্যার কারণগুলো টুকে রাখবে বিসিবি। একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সেসবের ভিত্তিতে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে নিউজিল্যান্ড সফরের পর, জানুয়ারিতে।

তত দিন পর্যন্ত অধিনায়ক মাহমুদ উল্লাহ এবং কোচিং স্টাফ ‘নিরাপদ’। তবে যত দূর জানা গেছে, অধিনায়কের চেয়ে বিদেশি কোচিং স্টাফের ওপরই ক্ষোভ বেশি নীতিনির্ধারকদের। ক্রিকেটারদের স্কিলের উন্নতি এবং কার্যকর ম্যাচ পরিকল্পনার জন্যই উচ্চ বেতনে নিয়োগ দেওয়া হয় বিদেশি কোচদের। কিন্তু এবারের বিশ্বকাপে পুরো টাকাই জলে গেছে বলে মনে করছেন বোর্ড কর্মকর্তারা। প্রায় প্রতিটি ম্যাচেই উইকেট বোঝা, একাদশ নির্বাচন কিংবা ম্যাচ পরিকল্পনায় ঘাটতি দেখা গেছে।

আরো প্রকট ছিল মাঠে ক্রিকেটারদের শরীরী ভাষা। গত পরশু আমাদের বার্তাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এ নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেন নামি ক্রিকেট কোচ ও বিশ্লেষক নাজমুল আবেদীন ফাহিম, ‘দলের সবাইকে দেখে মনে হয়েছে, এরা বিচ্ছিন্ন কোনো দ্বীপের বাসিন্দা! পুরো দলকে উজ্জীবিত রাখা তো কোচের অন্যতম একটা কাজ। ড্রেসিংরুমে থাকিনি। তবু টিভিতে দলটাকে দেখে বুঝতে পেরেছি যে কাজটা কোচ পারেননি।’

ক্রিকেটাররা বিভিন্ন সময়ে এমন অভিযোগ বোর্ডকে অতীতেও করেছিলেন। যেমন এই বছরের শুরুতে নিউজিল্যান্ড সফর থেকে ফেরার পর জাতীয় দলের একাধিক ক্রিকেটার বোর্ড সভাপতিকে অবহিত করেছিলেন যে মাঠে শিষ্যদের ব্যর্থতা দেখে হাসাহাসি করেন ভিনদেশি কোচিং স্টাফরা। অথচ বিশাল অঙ্কের বেতন পাওয়া তাঁদেরই ক্রিকেটারদের ত্রুটিগুলো শুধরে দেওয়ার কথা। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জোর ধাক্কায় বোর্ডও ক্রিকেটারদের সঙ্গে সুর মেলাতে শুরু করেছে। বিদেশিদের ওপর ‘নজরদারির’ জন্য স্থানীয় দুজনকে পাকিস্তান সিরিজেই দলের সঙ্গে জুড়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে। বিসিবি পরিচালক খালেদ মাহমুদের টিম ডিরেক্টর হিসেবে যোগদান নিশ্চিত। বিশ্বকাপ স্কোয়াডে জায়গা না পাওয়া সাতজনকে নিয়ে আজ প্রস্তুতিও শুরু করে দিচ্ছেন তিনি। আরেকজন, নামি কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের কাছেও বাংলাদেশের ড্রেসিংরুমে থাকার প্রস্তাব গেছে। চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য কয়েকটি দিন সময় চেয়েছেন তিনি। তবে বিসিবির নীতিনির্ধারকরা সালাউদ্দিনের যোগদানের ব্যাপারে আশাবাদী।

এদিকে ২০১৬ সাল থেকে প্রধান নির্বাচকের দায়িত্ব পালন করে আসা মিনহাজুল আবেদীন নান্নুর গদিও নড়বড়ে বলে জানা গেছে। তবে সাবেক অধিনায়ককে সম্মানের সঙ্গে ক্রিকেট বোর্ডেই অন্য কোনো ভূমিকায় রেখে দিতে চান নীতিনির্ধারকরা। আর টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক আপাতত মাহমুদই থাকছেন। বোর্ড সভাপতির সঙ্গে একান্ত বৈঠকে তাঁকে বরং ২০২২ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত নেতৃত্বে রেখে দেওয়ার পক্ষে মাশরাফি ও তামিম অভিমত দিয়েছেন বলে নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

তবে সব কিছুই নির্ভর করছে জানুয়ারিতে বাংলাদেশের ক্রিকেট কোন বাঁকে থাকে, তার ওপর!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *