তালেবান আতঙ্কে দেশ ছাড়লেন আফগান নারী ফুটবলাররা

 তালেবান আতঙ্কে দেশ ছাড়লেন আফগান নারী ফুটবলাররা

তালেবানশাসিত আফগানিস্তানে ঝুঁকির মুখে থাকা নারী ফুটবলাররা দেশ ছেড়েছেন। গতকাল নারী জাতীয় দলের বেশ কয়েকজন ফুটবলারসহ ৭৭ জন কাবুল ছেড়ে অস্ট্রেলিয়ার বিমানে চড়েন। তাদের সঙ্গে আরও ছিলেন নারী যুব দলের খেলোয়াড়, কর্মকর্তা ও তাদের পরিবারের সদস্যরা। পেশাদার খেলোয়াড়দের বৈশ্বিক সংগঠন ফিফপ্রোর উদ্যোগে আফগান খেলোয়াড়দের একটি অংশকে সরিয়ে আনা সম্ভব হলো। অস্ট্রেলিয়া সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়ে ফিফপ্রো জানিয়েছে, এখনও প্রচুর সংখ্যক নারী ক্রীড়াবিদকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়ার চ্যালেঞ্জ বাকি।

তালেবান ১৫ আগস্ট কাবুলের ক্ষমতা দখলের পর থেকেই আফগানিস্তানে মেয়েদের খেলাধুলা নিয়ে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। ১৯৯৬-২০০১ মেয়াদে ক্ষমতায় থাকার সময় মেয়েদের যে কোনো খেলায় অংশগ্রহণ ও মাঠে বসে দেখা নিষিদ্ধ ছিল। দুই দশক আগে মার্কিন নেতৃত্বাধীন পশ্চিমা সামরিক জোট আফগানিস্তানে ঘাঁটি গাড়লে ধীরে ধীরে পরিস্থিতির বদল হতে শুরু করে। ২০০৭ সালে গঠিত হয় মেয়েদের জাতীয় ফুটবল দল।

বিশ বছর পর তালেবান আবারও ক্ষমতায় আসার ফলে আগের কড়াকড়ি থাকতে পারে ধারণায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন দেশটির নারী ক্রীড়াবিদরা। এমন অবস্থায় ঝুঁকিতে থাকা ফুটবলারসহ অন্যান্য নারী ক্রীড়াবিদ ও তাদের পরিবারকে সরিয়ে আনার উদ্যোগ নেয় ফিফপ্রো। তাদের সহায়তা করে মানবাধিকার আইনজীবীদের একটি দল, বিভিন্ন এনজিও এবং ফিফার মতো বৈশ্বিক ক্রীড়া কর্তৃপক্ষ।

এক্ষেত্রে আফগানিস্তান নারী দলের সাবেক কোচ কেলি লিন্ডসে ও হ্যালি কার্টার এবং সাবেক অধিনায়ক খালিদা পোপাল ফুটবলার ও সংশ্নিষ্ট বাকিদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। গতকাল হ্যালি কার্টার এক টুইটে বলেন, ‘গত ৭২ ঘণ্টায় দিন-রাত পরিশ্রম করে যেসব ব্যক্তি ও অস্ট্রেলিয়ার বন্ধুদের সাহায্যে ৭৫ জনের বেশি আফগান নারী খেলোয়াড়, কর্মকর্তা ও তাদের পরিবারকে সরিয়ে আনা গেছে তাদের ধন্যবাদ জানাই।’

ফিফপ্রোর পক্ষ থেকে দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়, ‘নারী ফুটবলার ও খেলোয়াড়দের বড় একটি অংশকে আশ্রয় দেওয়ায় অস্ট্রেলিয়ার সরকারের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *