ফেনীতে মেয়রপ্রার্থীর মনোনয়ন ছিনতাই, অপহরণের ৪ ঘণ্টা পর উদ্ধার

 ফেনীতে মেয়রপ্রার্থীর মনোনয়ন ছিনতাই, অপহরণের ৪ ঘণ্টা পর উদ্ধার

ফেনীর ছাগলনাইয়া পৌরসভা নির্বাচনে আবদুল হালিম (৩৮) নামে একজন মেয়র পদপ্রার্থীকে মারধর করে তার হাত থেকে মনোনয়নপত্র ছিনিয়ে নিয়ে তাকে অপহরণ করে অন্যত্র নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। রবিবার বিকেলে উপজেলা গেইট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

অপহরণের প্রায় চার ঘণ্টা পর রাতে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে আটকিয়ে রেখে অপহরণকারীরা মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার সময়সীমা পর্যন্ত। পরে সন্ধ্যায় তাকে পৌরসভার বাঁশপাড়া এলাকা থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

পুলিশের সহায়তায় তাকে ছাগলনাইয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে শিশির ও মেজবাহ উদ্দিন নামে দুইজনকে আটক করেছে।

অপহৃত মেয়রপ্রার্থী আবদুল হালিম ছাগলনাইয়া পৌরসভার পশ্চিম ছাগলনাইয়া গ্রামের ছিদ্দিক আহম্মদের ছেলে।

আবদুল হালিম অভিযোগ করেন, বিকেলে তিনি তার কয়েকজন আত্মীয়কে সঙ্গে নিয়ে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া জন্য যাচ্ছিলেন।

উপজেলা গেটে গেলে বর্তমান মেয়র ও আওয়ামী লীগ নেতা মো. মোস্তফার কয়েকজন সমর্থক তার গতিরোধ করেন। তারা তাকে কিছু বুঝে ওঠার আগেই মারধর শুরু করেন। তার হাতে থাকা মনোনয়নপত্র ছিনিয়ে নেয় এবং তাকে টেনে হিঁচড়ে একটি অটোরিকশায় তুলে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে আটকিয়ে রাখেন। ফলে তিনি নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দিতে পারেননি।

ছাগলনাইয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার সোহেল পারভেজ জানান, তিনি ঘটনাটি শোনার পর ছাগলনাইয়া যান এবং ঘটনার সত্যতা দেখতে পান।

তিনি জানান, এ ঘটনায় জড়িতদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে।

এ বিষয়টি জানার জন্য ছাগলনাইয়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান মেয়র এবং আ. লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. মোস্তফাকে একাধিক বার তার মুঠোফোনে কল দেওয়া হয়। কিন্তু তার ফোন বন্ধ থাকায় বক্তব্য জানা যায়নি।

ছাগলনাইয়া উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দিন জানান, তার কার্যালয়ের সামনে হইচই হয়েছে। তবে নির্বাচন কার্যালয়ে এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি। কেউ অভিযোগও করেনি। বাইরে কোন ঘটনা হলে সেটি তার জানার কথা নয়।

ছাগলনাইয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মেজবাউল হায়দার চৌধুরী জানান, তিনি ঘটনাটি শুনেছেন। তবে বিস্তারিত কিছুই জানেন না।

ছাগলনাইয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহিদুল ইসলাম জানান, এক প্রার্থীর অভিযোগে ভিত্তিতে পুলিশ দুইজনকে আটক করেছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত অপরাপরদের আটকের চেষ্টা চলছে।

গতকাল রোববার মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিনে মেয়র পদে ২ জন, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরের তিনটি পদের বিপরীতে ১১ জন ও সাধারণ ওয়ার্ডে ৯টি কাউন্সিলর পদের বিপরীতে ৪৪ জন প্রার্থী মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন।

তফসিল অনুযায়ী মনোনয়নপত্র বাছাই ১১ অক্টোবর, আপিল দায়ের ১২ থেকে ১৪ অক্টোবর, আপিল নিষ্পত্তির ১৬ অক্টোবর, প্রার্থিতা প্রত্যাহার ১৭ অক্টোবর, প্রতীক বরাদ্দ ১৮ অক্টোবর এবং ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ ২ নভেম্বর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *