বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদন পেল ভারতের কোভ্যাকসিন

 বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদন পেল ভারতের কোভ্যাকসিন

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) অনুমোদন পেল ভারতের তৈরি করোনাভাইরাসের টিকা কোভ্যাকসিন। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় ভারত বায়োটেক সম্পূর্ণ দেশি ফর্মুলায় এই টিকা তৈরি করছে। গত জানুয়ারিতে এটি ভারতে ব্যবহারের অনুমোদন দেয় স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। খবর বিবিসি ও এনডিটিভির

বুধবার কোভ্যাকসিনকে জরুরি ব্যবহারযোগ্য টিকা হিসেবে অনুমোদন দিয়েছে ডব্লিউএইচও। ফলে অগণিত শিক্ষার্থীসহ এই টিকা নেওয়া কোটি কোটি ভারতীয় এবার বিভিন্ন দেশে প্রবেশের অনুমতি পেতে পারেন।

ডব্লিউএইচওর কাছ থেকে জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন পেতে দীর্ঘদিন অপেক্ষা করতে হয়েছে কোভ্যাকসিনকে। নিজেদের তৈরি এই টিকার অনুমোদনের জন্য গত এপ্রিলে আবেদন করেছিল ভারত বায়োটেক। গত জুলাইয়ে পাঠানো হয় টিকার সুরক্ষা, কার্যকারিতা, উৎপাদনস্থল পরীক্ষাসহ প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো।

এরই মধ্যে সাড়ে ১২ কোটি ভারতীয়কে কোভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। তবে টিকার তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষা শেষ হওয়ার আগেই এই টিকার ব্যবহার শুরু করায় অনেকে উদ্বেগ জানিয়েছিলেন। টিকাটি প্রস্তুতকারী ভারত বায়োটেকের দাবি, তাদের টিকার কার্যকারিতা ৭৮ শতাংশ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এক টুইটে বলেছে, তাদের বিশ্বাস এই টিকার ঝুঁকি যতটা, তার চেয়ে সুবিধা অনেক বেশি। বিশেষজ্ঞদের কারও কারও মতে, ভারতীয় কর্তৃপক্ষ তড়িঘড়ি করে করোনার এই টিকাটির অনুমোদন দিয়েছে। তবে ভারত বায়োটেকের চেয়ারম্যান ডা. কৃষ্ণা ইলা বলেছেন, ‘টিকাটি ২০০ শতাংশ নিরাপদ।’

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞ প্যানেল বলেছে, ১৮ বছর থেকে বেশি বয়সীদের চার সপ্তাহের ব্যবধান দিয়ে এই টিকার দুটি ডোজ দিতে হবে। তবে শিগগিরই শিশুদের ওপরও এটি প্রয়োগের অনুমোদন দিতে পারে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *