শিগগিরই কাটছে না পাঠ্যবই সংকট

 শিগগিরই কাটছে না পাঠ্যবই সংকট

নতুন পাঠ্যবই নিয়ে সংকট শিগগিরই কাটছে না। সরকারি হিসাবেই এখনো ছাপা হয়নি পৌনে ২ কোটি বই। আরও অন্তত এক সপ্তাহ লাগবে বই পৌঁছাতে। ফলে শিশুদের অপেক্ষার সময় আরও বাড়ল। এদিকে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে স্কুলে স্কুলে বই না পৌঁছানোর খবর পাওয়া যাচ্ছে। ওইসব স্কুলে বিরাজ করছে সুনসান নীরবতা। শিশুরা স্কুলে গিয়ে খালি হাতে ফিরছে। এই পরিস্থিতি মাধ্যমিক স্তরেই বেশি। দু-এক জায়গায় প্রাথমিকের বইয়ের সংকটের কথাও জানা যাচ্ছে।

শিশুদের মাঝে বিতরণের জন্য এবার সরকার ৩৪ কোটি ৭০ লাখ ২২ হাজার ৩০টি বই মুদ্রণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর মধ্যে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত ৩১ কোটি ১৯ লাখ ৮২ হাজার ৭৮৭টি বই সরবরাহ করা হয়েছে। যার মধ্যে প্রাথমিক স্তরে ৯ কোটি ৯৮ লাখ ৫৮ হাজার ৭৭৪টির মধ্যে ৯ কোটি ২৭ লাখ ৬২ হাজার ২৩২ এবং মাধ্যমিকে ২৪ কোটি ৭১ লাখ ৬৩ হাজার ২৫৬টির মধ্যে ২১ কোটি ৯২ লাখ ২০ হাজার ৫৫৫ বই সরবরাহ করা সম্ভব হয়েছে। গত দুদিনে কত বই সরবরাহ হয়েছে এই তথ্য সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। এই হিসাবে প্রাথমিকে ৭০ লাখ ৯৬ হাজার ৫৪২ এবং মাধ্যমিকে ২ কোটি ৭৯ লাখ ৪২ হাজার ৭০১টি সরবরাহ করা সম্ভব হয়নি। তবে সূত্রগুলো জানিয়েছে, দুদিনে ১ কোটি ৩০ লাখ বই সরবরাহ করা হয়েছে। সেই হিসাবে ২ কোটি ২০ লাখ বই এখনো প্রেসে ওঠেনি।

অবশ্য এনসিটিবির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান অধ্যাপক মশিউজ্জামান আমাদের র্বাতাকে বলেন, ‘প্রেসে মুদ্রণের অপেক্ষায় বই নেই বললেই চলে। সাধারণত উপজেলায় বই পৌঁছানোর পরে তথ্য সফটওয়্যারে আপলোড হয়। সে কারণে বই পৌঁছেনি বলে মনে হতে পারে। বাস্তবে পৌনে ২ কোটির মতো বই এখনো উপজেলায় পৌঁছেনি। এসবের কিছু পথে আছে, কিছু পৌঁছে গেছে। আবার কিছু ছাপা শেষে বাঁধাইখানায় বা ছাড়পত্রের অপেক্ষায় আছে। আগামী ৭ দিনের মধ্যে সব শিশুর হাতে পৌঁছে যাবে।’

রোববার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে শেরেবাংলানগর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় গিয়ে দেখা যায়, বই বিতরণ কার্যক্রম বন্ধ আছে। এ বিষয়ে কথা বলার জন্যও দায়িত্বশীল কাউকে প্রতিষ্ঠানে পাওয়া যায়নি। তবে জানা গেছে, ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত বই প্রতিষ্ঠানটিতে এসেছে, যা শনিবার শিক্ষার্থীদের দেওয়া হয়েছে। বাকি বই ৬ জানুয়ারি বিতরণের নোটিশ দেওয়া হয়েছে। তেজগাঁও আদর্শ স্কুল অ্যান্ড কলেজেও ষষ্ঠ শ্রেণির সবাই বই পেয়েছে। তবে সপ্তম শ্রেণির সব বই যায়নি। আর অষ্টম ও নবম শ্রেণির কোনো বই-ই দেওয়া হয়নি। এর আগে উদয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ জানিয়েছেন, তারা অষ্টম শ্রেণির কোনো বই পাননি। নবম শ্রেণিতে আংশিক বই সরবরাহ করা হয়েছে এনসিটিবি থেকে। শেরেবাংলানগর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে দেখা যায়, কয়েকজন শিক্ষার্থী বই নিতে আসে। কিন্তু স্কুলের গেট বন্ধ থাকায় বাইরে থেকেই তাদেরকে ফেরত যেতে হয়েছে। এ সময় সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী অনন্যা জানায়, শনিবারও বই নিতে এসে ফিরে যেতে হয়েছে তাকে। ঢাকার বাইরে থেকেও সব বই স্কুলে না পৌঁছানোর খবর পাওয়া গেছে। এ ক্ষেত্রে মাধ্যমিকের বই নিয়ে সংকট বেশি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *