আকাশযুদ্ধ নিয়ে ভারতের দাবি প্রত্যাখ্যান পাকিস্তানের

 আকাশযুদ্ধ নিয়ে ভারতের দাবি প্রত্যাখ্যান পাকিস্তানের

যুদ্ধবিমান এফ-১৬ ভূপাতিত করার ভারতীয় দাবিকে প্রত্যাখ্যান করেছে পাকিস্তান। ভারতের প্রেসিডেন্ট সোমবার ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে দুই দেশের মধ্যে আকাশযুদ্ধে সাহসী ভূমিকা রাখার কারণে দেশের তৃতীয়-সর্বোচ্চ সম্মানে ভূষিত করেন পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে। এ সময়ও ওই আকাশযুদ্ধে পাকিস্তানের এফ-১৬ যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার দাবি তোলে ভারত। অভিনন্দন বর্তমানকে পদক দেয়ার একদিন পর মঙ্গলবার ভারতের এমন দাবিকে ‘পুরোপুরি ভিত্তিহীন’ বলে তা প্রত্যাখ্যান করেছে পাকিস্তান।

এ খবর দিয়েছে অনলাইন ভয়েস অব আমেরিকা। এতে বলা হয়, পারমাণবিক শক্তিধর ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে আকাশপথে যুদ্ধ হয়। ওই যুদ্ধে ভারতের পাইলট অভিনন্দন বর্তমান পাকিস্তানি এফ-১৬ যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার দাবি করা হয়। এ জন্য তাকে পদক প্রদান করা হয় সোমবার।

অনুষ্ঠানে ভারতের প্রেসিডেন্ট রাম নাথ কোবিন্দ বলেন, প্রতিপক্ষের মোকাবিলায় ব্যতিক্রমী সংকল্পবদ্ধ হয়ে একটি সাহসী এবং মর্যাদার সঙ্গে সমস্যার সমাধান করেছেন তিনি। নয়া দিল্লিতে এই পদক প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তারা।

ভারতের এমন দাবির জবাবে মঙ্গলবার পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় একটি বিবৃতি দিয়েছে। এতে বলা হয়েছে, দেশের ভিতরে দেশবাসীকে খুশি করতে এবং নিজেদের লজ্জা ঢাকার জন্য ভারত যে বানোয়াট ও পুরো ফ্যান্টাসি সাজায়, তার একটি ক্লাসিক উদাহরণ হলো- পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে ভারতীয় পাইলটের বিমান বিধ্বস্ত করার দাবি।
উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে ওই আকাশপথের যুদ্ধের সময় ভারতীয় বিমান বাহিনীর কর্মকর্তারা বলেছিলেন, ২৭শে ফেব্রুয়ারি আকাশপথে পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের যুদ্ধ হয়।

সে যুদ্ধে ভারতীয় পাইলট অভিনন্দন বর্তমান পাকিস্তানের একটি যুদ্ধবিমান এফ-১৬ গুলি করে ভূপাতিত করেন। এরপর তার নিজের যুদ্ধবিমানে একটি ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত করে। তবে তিনি নিরাপদে তার ভিতর থেকে পাকিস্তান শাসিত কাশ্মীর অঞ্চলে অবতরণ করতে সক্ষম হন। ওই সময় সঙ্গে সঙ্গে ভারতের এ দাবিকে প্রত্যাখ্যান করে ইসলামাবাদ। অন্যদিকে ভারতীয় এই পাইলটকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে যায় পাকিস্তানি সেনারা। দুই দেশ যুদ্ধের কিনারা থেকে ফেরার প্রতিশ্রুতি দেয়ার দু’দিন পরে মুক্তি দেয়া হয় ভারতীয় এই পাইলটকে।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মঙ্গলবার তার বিবৃতিতে আরো বলেছে, ওইদিন পাকিস্তানি কোনো এফ-১৬ যুদ্ধবিমান গুলি করে ভূপাতিত করা হয়নি বলে এরই মধ্যে নিশ্চিত করেছেন আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞরা ও যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা। তারা দেখেছেন পাকিস্তানের স্টকে থাকা কোনো এফ-১৬ যুদ্ধবিমান খোয়া যায়নি। তাই বীরত্বের কাল্পনিক কৃতিত্বের জন্য সামরিক সম্মান প্রদান সামরিক আচরণের প্রতিটি নিয়মের পরিপন্থি। ভারতের শত্রুতা সত্ত্বেও শান্তির জন্য পাকিস্তানের যে আকাঙ্খা তার সাক্ষ্য দেয় অভিনন্দন বর্তমানকে দেশে ফেরত পাঠানোর ঘটনা।

ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে আকাশ যুদ্ধে লিপ্ত পাইলটদের বা সংশ্লিষ্টদের পাল্টাপাল্টি সম্মাননা দেয়া হচ্ছে। সম্প্রতি ভারতের বিমানবাহিনী তার পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে গ্রুপ ক্যাপ্টেন হিসেবে পদোন্নতি দিয়েছে। অন্যদিকে অভিনন্দন বর্তমানকে বহনকারী যুদ্ধবিমান পাকিস্তানি যে পাইলট বা পাইলটরা ভূপাতিত করেছেন তাদের অভিজাত সামরিক পদক দিয়েছে পাকিস্তান।

উল্লেখ্য, ভারত শাসিত কাশ্মীরে ওই বছর আত্মঘাতী হামলায় কমপক্ষে ৪০ ভারতীয় সেনা নিহত হন। এর জন্য দায়ী করা হয় পাকিস্তানের জঙ্গিদের মদতপুষ্টদের। এর ফলে কথিত জঙ্গি ঘাঁটির বিরুদ্ধে সীমান্ত অতিক্রম করে ভারত ২০১৯ সালে পাকিস্তানের ভিতরে হামলা চালায়। এই ঘটনার কয়েক ঘন্টার মধ্যে ফেব্রুয়ারিতে দুই দেশের মধ্যে আকাশ যুদ্ধ শুরু হয়। কিন্তু ভারতের এসব দাবি প্রত্যাখ্যান করে ইসলামাবাদ। তারা বলে ভারতের হামলায় পাকিস্তানে সামরিক বা বেসামরিক কোন ক্ষতিই হয়নি।

এরই মধ্যে এই দুই দেশের মধ্যে তিনটি যুদ্ধ হয়েছে। কূটনৈতিক এবং সামরিক উত্তেজনার প্রধান উৎস হয়ে আছে কাশ্মীর নিয়ে বিরোধ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *