‘বিশ্বকাপে ভারতকে হারালেই ব্ল্যাংক চেক পাবে পাকিস্তান’

 ‘বিশ্বকাপে ভারতকে হারালেই ব্ল্যাংক চেক পাবে পাকিস্তান’

ভারত-পাকিস্তানের সীমান্ত বৈরিতার প্রভাব পড়ে দুই দেশের খেলায়ও। বিশেষ করে ক্রিকেটে বিষয়টি পরিলক্ষিত হয় সবচেয়ে বেশি।

কোনো টুর্নামেন্টে কেবল পাকিস্তানকে হারাতে পারলেই খুশি ভারত। পাকিস্তান সমর্থকদেরও একই চাওয়া। 

যদিও দুদেশের মধ্যে ক্রিকেটযুদ্ধ তেমন একটা দেখা যায় না। বেশ কয়েক বছর হয়ে গেল দ্বিপক্ষীয় লড়াই হচ্ছে না পাক-ভারতের।

বিশ্বকাপ, এশিয়া কাপের মতো মেগা টুর্নামেন্টে কালে-ভদ্রে দেখা হয়। যেমন এবার আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই মুখোমুখি হবেন বাবর আজম ও বিরাট কোহলিরা। 

আর সেই ম্যাচের জয়-পরাজয় নিয়ে চমকে দেওয়া এক খবর দিলেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) চেয়ারম্যান রমিজ রাজা।

জানালেন, বিশ্বকাপে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতকে হারাতে পারলে মোটা অঙ্কের বিনিয়োগ পেতে পারে পাকিস্তান। দেশটির ক্রিকেটপাগল এক বিনিয়োগকারী নাকি তাদের জানিয়েছেন, কোহলির দলকে হারালে বাবরদের জন্য ‘ব্ল্যাংক চেক’ -এ সই করবেন তিনি। 

উল্লেখ্য, পাকিস্তান বোর্ড নিয়মিতই আর্থিক সংকটে পড়ার শঙ্কায় ভোগে। কারণ পিসিবির খরচের অর্ধেকটাই আসে আইসিসি থেকে। আর আইসিসির তার ফান্ডের জন্য ভারতের ওপর নির্ভরশীল। 

এ নিয়ে রমিজ রাজার শঙ্কা, ভারত আইসিসিকে অর্থায়ন বন্ধ করে দিলে তখন পিসিবির কী হবে!

আসন্ন বিশ্বকাপের আগে বোর্ড মিটিংয়ে সেই শঙ্কার কথা প্রকাশ্যে আনেন রমিজ। তখনই এই ব্ল্যাংক চেকের বিষয়টি উঠে আসে।

বৈঠকে পিসিবির নতুন চেয়ারম্যান বলেন, ‘পিসিবির ৫০ শতাংশ খরচ চলে আইসিসির অর্থায়ন থেকে। আর আইসিসির সিংহভাগ অর্থায়ন আসে ভারত থেকে। আমার শঙ্কা, ভারত যদি আইসিসিকে অর্থায়ন বন্ধ করে দেয়, তা হলে পিসিবি মুখ থুবড়ে পড়তে পারে। সেটি যেন না হয়, আমি পাকিস্তান ক্রিকেটকে শক্তিশালী করতে চাই। এ বিষয়ে একটি সুখবর আছে। এক বড় বিনিয়োগকারী আমাকে বলেছেন, আসছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পাকিস্তান যদি ভারতকে হারাতে পারে, তা হলে পিসিবির জন্য একটি ব্ল্যাংক চেক প্রস্তুত।’


পিসিবিকে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ রমিজ রাজা। বললেন, ‘আমাদের ক্রিকেট যদি আর্থিকভাবে শক্তিশালী হয়, তা হলে কেউ আমাদের ব্যবহার করতে পারবে না। ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের মতো দল সফর বাতিল করতে পারবে না। আমরা সেরা ক্রিকেট দল হওয়ার পাশাপাশি সেরা ক্রিকেট অর্থনীতির দেশ হতে চাই। দুটিই অবশ্য বড় চ্যালেঞ্জ।’

প্রসঙ্গত ওমান ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে আগামী ১৭ অক্টোবর পর্দা উঠছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের। ২৪ অক্টোবর নিজেদের প্রথম ম্যাচ খেলবে পাকিস্তান ও ভারত। আর প্রথম ম্যাচেই মুখোমুখি হচ্ছে এ দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী।

তথ্যসূত্র: ডব্লিউআইওএন নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *